বাংলাদেশ পরিবেশ দূষণে বছরে ক্ষতি ৪২ হাজার কোটি টাকা

Tue, Dec 12, 2017 12:16 AM

বাংলাদেশ পরিবেশ দূষণে বছরে ক্ষতি ৪২ হাজার কোটি টাকা

বাংলাদেশে বায়ু, পানি ও পরিবেশ দূষণে বছরে ক্ষতির পরিমাণ ৪২ হাজার কোটি টাকা, যা মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) ২.৭ ভাগ৷ শুধুমাত্র বায়ু দূষণে ক্ষতি হয় ২০ হাজার কোটি টাকা৷ দূষণের সবচেয়ে বেশি শিকার হয় শিশুরা৷

default

 

রবিবার ঢাকায় বিশ্বব্যাংকের এক কর্মশালায় প্রকাশিত সমীক্ষার ভিত্তিতে বাংলা দৈনিক প্রথম আলো এবং ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টার জানিয়েছে, ঢাকার ৫৯টি এলাকায় মাটি ও পানিতে সীসার পরিমাণ স্বাভাবিক মাত্রার চেয়ে বেশি৷ ঢাকা শহরের ৬ লাখ মানুষ এখন সিসা দূষণের কবলে৷

ঢাকার পরই নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর সবচেয়ে বেশি দূষণের শিকার৷ ফেব্রুয়ারি এবং মার্চ মাসে বায়ু দূষণ সবচেয়ে ভয়াবহ আকার ধারণ করে৷ ইট ভাটাগুলো বায়ু দূষণের জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী৷ বায়ু দুষণের জন্য ইটভাটা ৩৪ ভাগ এবং মোটরযান ১৮ ভাগ দায়ী৷

‘বাংলাদেশ পরিবেশ সমীক্ষা-২০১৭’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, অপরিকল্পিত নগরায়ণ ও শিল্পায়নের ফলে বাংলাদেশের পরিবেশ মারাত্মক ক্ষতির মুখে পড়ছে৷ শিল্পকারখানাগুলো অপরিকল্পিতভাবে ঢাকার ভূগর্ভস্থ পানি তুলে ফেলছে৷ ফলে পানির স্তর আশঙ্কাজনক হারে নীচে নেমে যাচ্ছে৷ ফলে খাল ও নদীসহ অন্যান্য জলাশয়ের পানিও মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে

৭১৯টি তৈরি পোশাকশিল্পের ওয়াশিং ও ডাইং কারখানার বর্জ্য দূষণের অন্যতম উৎস৷ এক টন কাপড় উৎপাদন করতে নদীতে বর্জ্য যাচ্ছে ২০০ টন৷ ইস্পাত কারখানাগুলো থেকে ১ লাখ কোটি লিটার এবং কাগজ কারখানাগুলো থেকে ৪৫ হাজার কোটি লিটার দূষিত বর্জ্য পানিতে মেশে৷

ঢাকার পাশাপাশি ছোট জেলা শহরগুলোতে জলাশয় ভরাট, দখল ও দূষণ চলছে৷ ২০১৭ সালের বর্ষা মৌসুমে ঢাকায় টিকে থাকা ১৩টি খালের মধ্যে মাত্র দুটি সচল ছিল৷

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের (বাপা) প্রধান ড. আব্দুল মতিন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বাংলাদেশে পরিবেশ বিপর্যয় ঘটছে৷ যার ফল স্বাস্থ্য বিপর্যয়৷ আমরা অনেক দিন ধরেই পরিবেশ নিয়ে কথা বলছি৷ কিন্তু সমস্যা হলো যারা পরিবেশ দূষণের জন্য প্রধানত দায়ী তারা অনেক ক্ষমতাধর৷ তাদের এই ক্ষমতা রাজনৈতিকও৷ ফলে তারা রাজনৈতিক ছত্রছায়ায় পরিবেশ দূষণ অব্যাহত রেখেছে৷’’

তিনি আরো বলেন, ‘‘পরিবেশ রক্ষায় আইন আছে, নীতিমালা আছে৷ কিন্তু তা মানা হচ্ছেনা৷ এসব আইন ও নীতিমালা ভঙ্গ করলে শাস্তিরও বিধান আছে, কিন্তু অপরাধীরা শাস্তি পাচ্ছেনা৷ কিন্তু সরকার চাইলে পারে৷ সরকারের সদিচ্ছাই পারে পরিবেশ রক্ষায় কার্যকর ভূমিকা নিতে৷ কিন্তু সরকার যদি সুশীল সমাজের মত শুধু কথা বলে, কাজ না করে তাহলে সামনে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে৷’’

ঢাকায় পানি ও বায়ু দূষণের কারণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে দরিদ্র লোক ও শিশুরা৷ রাজধানীর ৫৯টি এলাকাকে তীব্র মাত্রায় সিসা-আক্রান্ত বা হট স্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে৷ এসব এলাকার পানি ও মাটিতে আরও পাওয়া গেছে আর্সেনিক, ক্যাডমিয়াম, ক্রোমিয়াম, ক্ষুদ্র বস্তুকণা (পিএম ২.৫), কীটনাশক ও সালফার ডাই-অক্সাইডের মতো মানবদেহের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর বস্তু৷

প্রথম আলো ও ডেইলি স্টারে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, রাজধানীতে শুধু সিসা-দূষণের শিকার ছয় লাখ মানুষ৷ তাদের বেশিরভাগই শিশু৷ রক্তের নমুনা পরীক্ষা করে সিসার অস্তিত্ব পাওয়া গেছে মাত্রার চেয়েও বেশি৷

সোহরাওয়ার্দি হাসপতালের শিশু বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. আব্দুল্লাহ শাহরিয়ার ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘পরিবেশ দূষণের প্রধান শিকার নারী ও শিশু৷ বিশেষ করে শব্দ দূষণ শিশুদের অবসাদগ্রস্ত করে তোলে৷ তারা বধিরতায় আক্রান্ত হয়৷ তাদের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যাহত হয়৷ তারা বুদ্ধি প্রতিবন্ধী হয়ে উঠতে পারে৷ আর অতিরিক্ত সিসা শিশুদের রক্তশূণ্যতা সৃষ্টি করে৷ তারা ঠিকমত খেলেও অপুষ্টির শিকার হয়৷’’

(সৌজন্যেঃ ডয়েচে ভেলে)


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
উপরে যান