জাবির কেন্দ্রিয় মন্দিরে ওয়াশরুম ভাংচুর ও চুরি

Tue, Jan 2, 2018 5:13 PM

জাবির কেন্দ্রিয় মন্দিরে ওয়াশরুম ভাংচুর ও চুরি
  • আশীক আল অনিক,জাবি প্রতিনিধি:

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রিয় মন্দিরের ওয়াশরুম ভাংচুর করা হয়েছে। সেই সাথে মন্দিরের কিছু অাসবাবপত্র চুরি হয়েছে। অাজ সোমবার (১ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা প্রার্থনা করতে গিয়ে দেখতে পায় মন্দিরের ওয়াশ রুমের ভ্যান্টিলেটর ভাঙ্গা। ওয়াশরুমের তালা খুলে দেখা যায়, ওয়াশরুমের বেসিন,ট্যাপ এবং টয়লেটের ফ্লাসসহ সবকিছু ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে জাবি শাখা সনাতন বিদ্যার্থী সংসদের সভাপতি রতন কুমার বিশ্বাস বলেন, 'অাজ মন্দিরে প্রার্থনা করতে গিয়ে অামরা এই ঘটনা দেখতে পাই।অামরা বুঝতে পারছি না, স্বাধীন ও মুক্তমনা মানুষের যেখানে বসবাস করে,সেই বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এমন সাম্প্রদায়িক কর্মকান্ড কিভাবে সম্ভব। তিনি অারো বলেন, এর অাগেও মন্দিরে অনেক অাক্রমন করা হয়েছে। গত বছরের ১৪ নভেম্বর দুপুরে মন্দিরের দরজায় অাগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। দরজা লোহার তৈরির বিধায় অক্ষত থাকে।দরজার নিচে কর্কশিট থাকায় সেটি পুড়ে যায়।' মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক প্রক্টর তপন কুমার সাহা বলেন, অামি ঘটনাটি শুনেছি। এটি সত্যিই দুঃখজনক। উপাচার্য মহাদয়ের সাথে এই ঘটনা নিয়ে কথা বলে অামরা ব্যবস্থা নিবো। এর জন্য রেজিস্টার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করতে হবে। একটি বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে এই ঘটনা মোটেই কাম্য নয়। এই ঘটনাটি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এর তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছে। শিক্ষার্থী কিশোর বিশ্বাস শুভ্র লিখেছেন, হামলাকারীর সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।

অারেক শিক্ষার্থী নোমান রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়েরর মত জায়গায় এমন ঘটনা অপ্রত্যাশিত। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসাবে এটি মেনে নিতে পারি না। প্রশাসন দ্রুত এর পদক্ষেপ নিবেন।

 উল্লেখ্য, মন্দিরটি ২০১৪ সালে সনাতন শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের সহযোগিতায় প্রাথমিক ভাবে একটি টিন-সেড মন্দির প্রতিষ্ঠা করা হয়।তারপর থেকেই মন্দিরটির উপর একের পর এক ঘটনা ঘটছে। মন্দিরটি সার্বক্ষণিক দেখাশুনার জন্য মন্দির কর্তৃপক্ষ থেকে একজন গার্ড দেওয়ার কথা বারবার বললেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোন গুরুত্ব দেয় নি। এমনকি মন্দিরের যাতায়াতের জন্য কোন রাস্তার ব্যবস্থাও করে দেয় নি প্রশাসন।


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
উপরে যান