নীতি পরিবর্তনের ফলে ইউটিউবারদের ভবিষ্যত প্রশ্নে মুখোমুখি ইউটিউব বিশেষজ্ঞ কামরুল ইসলাম রুবেল

Wed, Jan 17, 2018 7:31 PM

নীতি পরিবর্তনের ফলে ইউটিউবারদের ভবিষ্যত প্রশ্নে মুখোমুখি ইউটিউব বিশেষজ্ঞ কামরুল ইসলাম রুবেল
  • আবু নঈম মুহম্মদঃ

বিশ্বজুড়ে ইউটিউবে পোস্টের মাধ্যমে আয়ের একটা পথ খুলেছে বহু আগে। এই ধারায় বাংলাদেশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের অসংখ্য উদ্যোক্তা ইউটিউবে কনটেন্ট আপলোডের মাধ্যমে আয়ের পথ বেছে নিয়েছেন। কিন্তু এই ভিড়ে কিছু অসাধু চক্র ইউটিউবে বিভিন্ন আপত্তিকর, সামাজিক নীতিবিরুদ্ধ এবং যাচ্ছেতাই ভিডিও আপ করার মাধ্যমে অবৈধ পথে অায় রোজগারের পথ খুঁজছিলেন। বিষয়টি টের পেয়ে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ তাদের পলিসিতে ব্যাপক পরিবর্তনে এনেছেন, যার ফলে এখন আর যে কেউ চাইলেই ইউটিউবে কনটেন্ট আপ করে আগের মতো আয় করতে পারবেনা।

এই বিষয়ে আমরা মুখোমুখি হয়েছি বাংলাদেশের অন্যতম ইউটিউব বিশেষজ্ঞ কামরুল ইসলাম রুবেল এর সাথে। তাঁর সাথে জার্মান বাংলা নিউজ এর আলাপচারিতার চুম্বকাংশ নিম্নে তুলে ধরা হলো-

জার্মান বাংলাঃ ইউটিউবের নতুন নীতিমালা সম্পর্কে যদি কিছু বলতেন

কামরুল ইসলামঃ একথা অস্বীকার করার উপায় নেই যে ২০১৭ ছিলো ইউটিউব তথা গুগলের জন্য একটি কঠিন বছর। বিভিন্ন রকমের সমস্যায় র্জজরিত হয়ে তা গুগলের বিজ্ঞাপণদাতা এবং কমিউনিটির উপর প্রচন্ড খারাপ অবস্থা ধারণ করেছিলো। গুগল এখন নিশ্চিত করতে চায় যে, ইউটিউব কোন বদমাইশ কনটেন্ট ক্রিয়েটরের জায়গা নয়। গত বছরে গুগল তার বিজ্ঞাপণদাতাদের এধরণের দুষ্ট কনটেন্ট ক্রিয়েটরদের হাত থেকে রক্ষার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছিলে, কিন্তু গুগল ভাবছে তা যথেষ্ট নয়। তাই গুগল বিজ্ঞাপণদাতাদের সুরক্ষার জন্য সম্পূর্ণ নতুন এক পদ্ধতি নিয়ে এসেছে, যেমনটা গত বছরের ডিসেম্বরে ঘোষণা দিয়েছিলো। 

জার্মান বাংলাঃ নতুন নিয়মে মনিটাইজেশনের পদ্ধতি তাহলে কী?

কামরুল ইসলামঃ গুগল অনেক কিছু বিবেচনা করে এবং তার বিজ্ঞাপণদাতা ও ক্রিয়েটরদের সাথে লম্বা আলাপ শেষে একটি পদ্ধতি নির্ধারণ করেছে যে কোন ধরণের কনটেন্টের জন্য বিজ্ঞাপণ দেয়া যেতে পারে। আগে ১০০০০ (দশ হাজার) ভিউ হলেই ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রামের জন্য কোন চ্যানেল উপযুক্ত বলে বিবেচনা করা হতো, অর্থাৎ মনিটাইজেশন অন হতো। কিন্তু বিগত বছরের অভিজ্ঞতা থেকে গুগলের এটা বোঝা হয়েছে যে, এই পদ্ধতি মোটেই যথেষ্ট নয় বরং এর চেয়ে ভালো কোন পদ্ধতিতে চ্যানেল নির্বাচন করতে হবে যে কারা বিজ্ঞাপণ পাবে। তাই শুধুমাত্র ভিউই নয়, এর পরিবর্তে কোন চ্যানেলের আকার মানে কতোটা বড়, এর ভিউয়ারসদের দেখানোর ক্ষমতা কতোটুকু, এবং কনটেন্ট ক্রিয়েটরের আচার-আচরণের উপর ভিত্তি করেই বিজ্ঞাপণ দেয়া হবে।

এজন্য আজ থেকে কোন চ্যানেলকে বিজ্ঞাপণ পেতে হলে বা ইউটিউব পার্টনার প্রোগ্রামে অংশ নিতে হলে, তথা মনিটাইজেশন অন করতে হলে ১০০০ (এক হাজার) সাবস্ক্রাইবার এবং ৪০০০ (চার হাজার) ঘন্টা ভিউ টাইম পেতে হবে, এবং তার জন্য এক বছর সময় নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ এই অর্জনগুলো এক বছরের মধ্যেই হতে হবে। ২০শে ফেব্রুয়ারী ২০১৮ থেকে যেসব চ্যানেলের বর্তমানে মনিটাইজেশন অন আছে সেগুলোর জন্যও এই পদ্ধতি প্রযোজ্য হবে।

জার্মান বাংলাঃ নতুন নিয়মে কী কী কারণে চ্যানেল বন্ধ হয়ে যেতে পারে?

কামরুল ইসলামঃ এটি ঠিক যে শুধুমাত্র একটি চ্যানেলের সাইজ দিয়েই তার বিজ্ঞাপণ প্রাপ্তির উপযোগিতা নির্ণয় করা সম্ভব নয়। তাই গুগল এখন থেকে কমিউনিটি ষ্ট্রাইক, স্প্যাম এবং অন্যান্য এবিউজ ফ্ল্যাগস গুলোও মনিটর করে তারপর মনিটাইজেশন অন করবে। অর্থ্যাৎ এগুলোর কোন একটির ঘাটতির কারণ হলেই মনিটাইজেশন পাওয়া যাবেনা, যা আগে অনেক বেশী সহনীয় মাত্রায় ছিলো। এই পলিসি বর্তমানে অন থাকা চ্যানেলগুলোর উপর স্বয়ংক্রিয়ভাবে প্রযোজ্য হয়ে যাবে এবং প্রযোজ্য হওয়ার সময় যদি কোন চ্যানেলকে বারবার অথবা গুরুত্বরভাবে কোন কমিউনিটি গাইড লাইন ভেঙ্গেছে বলে জানা যায় তাহলে চালু থাকা চ্যানেলের মনিটাইজেশনও বন্ধ হয়ে যাবে। এবং আগের মতোই তিনটি কমিউনিটি গাইড লাইন ভঙ্গ করলে একাউন্ট ও চ্যানেল পুরোপুরি সাসপেন্ড করা হবে।

জার্মান বাংলাঃ এতে করে ইউটিউবারদের লাভ-ক্ষতির বিষয়টি যদি ব্যাখ্যা করতেন

কামরুল ইসলামঃ উপরে বর্ণিত মনিটাইজেশনের যোগ্যতাগুলো আপাতদৃষ্টিতে কঠিন বলে মনে হলেও এই ব্যবস্থার ফলে খারাপ কনটেন্ট ক্রিয়েটর এবং স্প্যামার মুক্ত হয়ে যাবার কারণে ভালো কনটেন্ট ক্রিয়েটররা অনেক বেশী উপকৃত হবে। এই পদ্ধতির ফলে যারা বিজ্ঞাপণ পাওয়ার যোগ্য বলে বিবেচিত হবে তারা এখন থেকে 95% এর বেশী বিজ্ঞাপণদাতাতের কাছ থেকে বিজ্ঞাপণ পাবে।

জার্মান বাংলাঃ আমরা যতোদূর জেনেছি, কনটেন্ট রিভিউ এবং বিজ্ঞাপন বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কিছু নতুন নিয়ম অনুসরণ করবে, সেসব বিষয়ে যদি বলতেন।

কামরুল ইসলামঃ আরো দুটি নতুন বিষয় ইউটিউব নিয়ে আসছে, সেগুলো হলো

# এখন থেকে ম্যানুয়ালি রিভিউকে গুগল সবার আগে প্রেফার করবে। অর্থাৎ বিজ্ঞাপণ দেয়ার জন্য এখন শুধু সফটওয়্যারের উপর নির্ভর না করে ম্যানুয়াল রিভিউ করা হবে।

# বিজ্ঞাপণদাতাদের জন্য আরো বেশী স্বচ্ছতা ও সহজ কন্ট্রোল এনে দিবে, যাতে করে তারা জানতে পারে যে, তাদের বিজ্ঞাপণগুলো কোথায়, কোন চ্যানেলে, কিভাবে দেখানো হচ্ছে।

এই বিষয়গুলো নিয়ে আমি আর বর্ণনা করছিনা। কারণ ওগুলো সরাসরি মনিটাইজেশন সম্পর্কিত নয়। মোদ্দাকথা, এখন থেকে বিজ্ঞাপণ পেতে হলে অবশ্যই এডভার্টাইজ ফ্রেন্ডলী কনটেন্ট বানাতে হবে, যা হচ্ছে সব কথার শেষ কথা।

জার্মান বাংলাঃ বাংলাদেশের ইউটিউবারদের জন্যে আপনার মেসেজ কি?

কামরুল ইসলামঃ আমার ব্যক্তিগত মতামত হচ্ছে, এমন কিছুর জন্যই অনেক অনেক দিন ধরে অপেক্ষা করেছি। মাঝে মাঝে ভেবেছি কিভাবে সম্ভব হতে পারে যে, চটি গল্প, আজব-গুজব-বায়বীয় সংবাদ, টিভি চ্যানেলের কনটেন্ট অবৈধ কপি করে গুগলকে বোকা বানিয়ে কিছু অসৎরা টাকা কামাচ্ছে। এভাবে আর কতদিন চলবে? ইউটিউবে ঢোকা যাচ্ছিলনা ফাউল কনটেন্টের জ্বালায়। সেই দিন শেষ হয়ে গেছে। সিম্পলি শেষ। যারা আসলেই মেধাবী, সত্যিকারের ক্রিয়েটর ইউটিউব এখন শুধুমাত্র তাদের জন্যই। 

জার্মান বাংলাঃ আমাদের সময় দেয়ার জন্যে আপনাকে ধন্যবাদ
কামরুল ইসলামঃ আপনাদেরকেও ধন্যবাদ।

 


সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
উপরে যান