সহিংসতা কাম্য নয়

Thu, Feb 8, 2018 12:14 AM

সহিংসতা কাম্য নয়
জনগণ উৎকন্ঠা থেকে মুক্তি চায়।
জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায়কে ঘিরে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গণে অস্থীরতা দেখা দিয়েছে, সেই সাথে উৎকন্ঠার বারুদ চরমে উঠেছে। সবখানে একটাই প্রশ্ন কী হবে ৮ ফেব্রুয়ারি।
আদালতের রায় আদালত দিবে এবং সেখানে আইনি লড়াইয়ের সুযোগ রয়েছে, কিন্তু এই রায়কে পুঁজি করে বিএনপি-জামাত জোটের যুদ্ধংদেহী মনোভাব এবং আয়োজন, আর তাকে মোকাবেলা করার  জন্যে সরকারের পক্ষ থেকে যে নজিরবিহিন নিরাপত্তা প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে, তাতেই উৎকন্ঠার পারদ চরমে।
সচেতন মহলমাত্রই আশা করেন, রায় যদি খালেদা জিয়ার বিপক্ষে যায়, বিচারবিভাগের প্রতি  শ্রদ্ধা জানিয়ে বিএনপির  উচিত হবে আইনি লড়াইয়ের মাধ্যমে তা সুরাহা করা। আদালতের রায়ের বিপক্ষে যদি রাজপথ উত্তপ্ত করা হয় কিংবা নাশকতা চালানো হয়, তাহলে সেটা আদালতের বিপক্ষে বিদ্রোহ বলেই বিবেচিত হবে এবং তা কোনোভাবেই কাম্য নয়।
অপরদিকে নিরাপত্তা বিধানের নামে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী যেন বাড়াবাড়ি না করে, এবং সাধারণ মানুষ যেন ভূক্তভোগী না হয় সেদিকে খেয়াল রাখার দায়িত্ব সরকারের।
সম্প্রতি রাস্তা পার হতে যাওয়া এক কিশোরীকে মারধরের ঘটনার ভিডিওতে নিরাপত্তা কর্মীদের বাড়াবাড়ির বিষয়টি অবশ্যই নিন্দনীয়।
বিএনপির মনে রাখতে হবে, আদালতের রায়ে খালেদা জিয়ার যদি জেল জরিমানা হয়ে যায়, সে রায় তারা রাজপথে জ্বালাও-পোড়াও করে বাতিল করতে পারবেনা। উচ্চ আদালতেই রয়েছে তার সমাধান। এবং এই উসিলায় বিএনপিতে ঘাপটি মেরে থাকা প্রতিক্রিয়াশীল অংশ কিংবা জামাত-শিবির এবং জেএমবির মতো উগ্র মতাদর্শিরা যদি নাশকতার পথ বেছে নেয়, তবে সেটা মোটেই বিএনপির পক্ষে যাবেনা এবং আগামি দিনগুলোতে সুস্থ রাজনীতির পথ রুদ্ধ করে দিবে।

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
উপরে যান