অন্তরের চোখে দেখা পৃথিবী আর মনে মস্তিষ্কে দাগ রেখে যাওয়া অনুভূতির জলোচ্ছ্বাস আমাকে অনুপ্রাণিত করে: নুরুন নাহার লিলিয়ান  

Tue, Feb 13, 2018 7:11 PM

অন্তরের চোখে দেখা পৃথিবী আর মনে মস্তিষ্কে দাগ রেখে যাওয়া অনুভূতির জলোচ্ছ্বাস আমাকে অনুপ্রাণিত করে: নুরুন নাহার লিলিয়ান  
  • আবু নঈম মুহম্মদঃ

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে লেখক নুরুন নাহার লিলিয়ানের গল্পগ্রন্থ ‘অহর্নিশ’। বিষয়টি ঘিরে আমরা কথা বলেছি তাঁর সাথে। 

  • লেখালেখি কবে থেকে শুরু, কীভাবে?
  • স্কুল জীবন থেকে বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে জড়িত ছিলাম। পরিবারে বড় বোন কামরুন নাহার (ডলি হাসান ) লেখালেখি করতো আর সেখান থেকেই লেখালেখির চর্চাটা ছিল। ১৯৯৯ সালে " অকারন অঘটন " নামে একটি ছোট গল্প জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশের মধ্য দিয়েই মূলত আমার লেখক জীবন শুরু
  • আপনার লেখার উপজীব্য বিষয়বস্তু সাধারণতঃ কী?
  •  এই জগতের তাবৎ রহস্য, প্রকৃতি আর সাধারণ মানুষের জীবন ।
  • গল্পে কার লেখা আপনাকে অনুপ্রাণিত করে?
  •  দেশি বিদেশি যখন যে লেখকের বই পড়ি তখন সে লেখকের চিন্তা ভাবনা কিছু সময়ের জন্য আন্দোলিত করে বটে। তবে আমার অন্তরের চোখে দেখা পৃথিবী আর মনে মস্তিষ্কে দাগ রেখে যাওয়া অনুভূতির জলোচ্ছ্বাসই বস্তুত আমাকে অনুপ্রাণিত করে ।
  • সমকালীন গল্পকারদের সম্পর্কে বলুন।
  • সমকালীন অনেক লেখকের লেখাই ভাল লাগে । তবে ভাষাগত এবং বর্ণনায় সময়ের স্রোতে কিছু পরিবর্তন ও এসেছে। তবে আমি সমকালীন কিছু পুরষ্কারপ্রাপ্ত গল্পের বই পড়ে হতাশ হয়েছি। অনেক ভাল গল্প উপন্যাস অনেকেই লিখছেন। সঠিক পাঠক, প্রচারনা এবং পরিবেশনার অভাবে সাহিত্য বোদ্ধাদের কাছে পৌঁছাতে পারছেনা। আর পুরষ্কার বা স্বীকৃতি চলে যায় অপেক্ষাকৃত কম যোগ্য মানুষের কাছে ।
  • আদর্শ গল্পের কী কী উপাদান থাকা জরুরি বলে আপনি মনে করেন।
  • প্রচলিত আছে ছোট কলেবরে কথা সাহিত্যের যে রূপবন্ধ প্রকাশ তাই ছোট গল্প। কিন্তু আদর্শ ছোট গল্প নিয়ে আছে নানাবিধ মতামত। বহু বছর আগে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর ছোট গল্পের আদর্শ সংজ্ঞা দিয়ে গেছেন এই ভাবে " শেষ হইয়া ও হইল না শেষ "। তবে আমার অভিমত লেখক ঘটনা বা কাহিনীর নান্দনিকতা এবং শিল্পশর্ত পূরণ করে সংক্ষিপ্ত আকারে নিজের ভাবনা কলমে জীবন্ত করে তুলতে পারলেই তা সার্থক বা আদর্শ ছোট গল্প হতে পারে ।
  • এ যাবত প্রকাশিত গ্রন্থ সমূহ কি কি?
  •  ২০০৬ সালে আগামী প্রকাশনী থেকে প্রথম উপন্যাস " ইন্দিরা রোড " প্রকাশ হয়। এর পর শিখা প্রকাশনী থেকে উপন্যাস " ল্যাম্পপোষ্টের আলোতে" (২০০৭) , সেকেন্ড জুন"(২০০৮) , " অরোরা টাউন" (২০১৭) , গল্প গ্রন্থ " অহর্নিশ " (২০১৮" । এ বছর এক রঙা এক ঘুড়ি প্রকাশনী করে গল্প গ্রন্থ " জাপানি ভূতের গল্প " ।

  • ভ্রমণ কাহিনী, গল্প, কবিতা, কোনটিতে বেশী স্বাচ্ছন্দ বোধ করেন?
  • ভ্রমণ কাহিনী এবং উপন্যাস লিখতে বেশি আনন্দ অনুভব করি। অনেকটা সময় ধরে ভ্রমণ কাহিনী কিংবা উপন্যাসে বিচরণ করা চরিত্রদের সাথে গভীর বিস্ময়ে ডুবে থাকা যায়। বেঁচে থাকার সুখ শক্তির নির্যাসটুকু হয়তো আমি সেখান থেকেই পাই ।
  • তরুণ লেখককের জন্য আপনার পরামর্শ কী?
  •  নিয়মিত দেশি বিদেশি সব ভাল লেখকদের বই পড়ার চর্চা করা। স্কুল জীবন থেকেই পাঠ্য বইয়ের সাথে বই পড়ার সংস্কৃতি গড়ে তোলা। নিজের ভাল মন্দ অনুভূতি লেখার মাধ্যমে প্রকাশ করা ।
  • আপনার পারিবারিক জীবন সম্পর্কে জানতে চাই। 
  • সংসারে আমরা স্বামী স্ত্রী দুজন মানুষ । আমার স্বামী ডঃ মোহাম্মাদ নজরুল ইসলাম ভুঁইয়া বিজ্ঞান মন্ত্রণালয়ের অধীনে পরিচালিত বিসিএসআইআর গবেষণাগারে বৈজ্ঞানিক হিসেবে কর্মরত আছেন । আর আমি সৃজনশীল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান "থ্রি ডি এডভারটাইজিং" এর চেয়ারম্যান হিসেবে আছি ।
  • উল্লেখযোগ্য স্মৃতি, ভালো লাগা মন্দ লাগা।
  •  লেখালেখির জগতে আমার ভাল লাগার মধুর স্মৃতি হল আমার প্রথম উপন্যাস " ইন্দিরা রোড "। ছাত্র জীবনে প্রকাশিত এই উপন্যাসটি প্রচ্ছদ করেছিলেন দেশ বরেণ্য প্রচ্ছদ শিল্পী ধ্রুব এষ আর প্রকাশ করেছিলেন শক্তিশালী প্রকাশনা সংস্থা ‘আগামী প্রকাশনী। সেই বয়সে যা স্বপ্নের মতো ছিল। মন্দ লাগার বিষয়টি বাংলাদেশের সবার জানা। নিরাপত্তা এবং সামাজিক সমস্যার কারনে দীর্ঘ নয় বছর বই প্রকাশ থেকে বিরত ছিলাম । যদি ও এই বিরতি আমার ভাবনার জগতকে সমৃদ্ধ করেছে । যা আগামীর পথে সহায়ক হবে ।
  • জার্মান বাংলা নিউজ সাহিত্য বিভাগকে সময় দেয়ার জন্যে আপনাকে ধন্যবাদ
  • আপনাদেরকেও ধন্যবাদ।

সর্বাধিক পঠিত

  • অাজ
  • সপ্তাহে
  • মাসে
উপরে যান